গ্লুচেস্টারশায়ারের হয়ে বাথ সিসি একাদশের বিপক্ষে একটি টি-২০ ম্যাচ খেলতে নেমে মাত্র ২৫ বলেই সেঞ্চুরি করেছেন স্কটিশ ব্যাটসম্যান জর্জ মানসে। অবিশ্বাস্য মনে হলেও সত্যি যে, মাত্র ১৭ বলেই অর্ধশতক করেন তিনি। বাকি আট বলে করেছেন শতক। যার মধ্যে এক ওভারে ৬ বলে ৬ টি ছক্কার মার ছিলো। টি-টোয়েন্টি সহ সব ধরণের ক্রিকেট ফরম্যাটেই এটিই দ্রুততম সেঞ্চুরির রেকর্ড। সোমবার আইসিসির অফিসিয়াল ওয়েবসাইট আইসিসি ক্রিকেট ডটকম এ তথ্য জানিয়েছে।

জর্জ মানসে এদিন ৩৯ বলে ২০ টি ছক্কা ও ৫ চারে ১৪৭ রানের দানবীয় ইনিংস খেলেন। ব্রাউনের বলে হ্যানকিনসের হাতে ক্যাচ দিয়ে বিদায় নেন জর্জ মানসে। তাকে সঙ্গ দেওয়া আরেক ওপেনার জিপি উইলোস শতক হাঁকান ৫৩ বলে। তিন নম্বরে নামা টম প্রাইসও ২৩ বলে ৫০ রানের ঝড়ো ইনিংস খেলেন। ২০ ওভার শেষে মানসের দানবীয় ইনিংসে ৩ উইকেটে ৩২৬ রানের বিশাল সংগ্রহ পায় গ্লুচেস্টারশায়ার। এই ম্যাচ গ্লুচেস্টারশায়ারের সেকেন্ড ইলেভেনের প্রতিপক্ষ ছিল বাথ সিসি। তারাও ২১৪ রানের বড় সংগ্রহ পায়। হারে ১১২ রানে।

তবে জর্জ মানসের ইনিংস রেকর্ড হিসেবে ধরা হবে না। কারণ এটা আইসিসি স্বীকৃত কোন ম্যাচ নয়। এর আগে আইসিসির স্বীকৃতি না পাওয়া এক টি-১০ ম্যাচে ২৫ বলে সেঞ্চুরির কীর্তি আছে। ওই ম্যাচে সারির ব্যাটসম্যান উইল জ্যাক ২৫ বলে সেঞ্চুরি করেন।

টি-টোয়েন্টি ক্রিকেটে আইসিসি স্বীকৃত দ্রুততম সেঞ্চুরি রেকর্ডটি ক্রিস্টোফার হেনরি গেইলের দখলে রয়েছে। ২০১৩ সালে তিনি পূনে ওয়ারিয়র্সের সাথে করেছিলেন ৩০ বলে সেঞ্চুরি। সেদিন রয়্যাল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরুর হয়ে পুনে ওয়ারিয়র্সের বিপক্ষে ৬৬ বলে ১৭৫ রানের দানবীয় ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন। যা এখন পর্যন্ত টি-২০ ক্রিকেটে কোনো ক্রিকেটারের ব্যক্তিগত সর্বোচ্চ রান।

গেইলরা ৫ উইকেটে ২৬৩ রান সংগ্রহ করেছিলেন সে ম্যাচে। গেইলের এই রেকর্ডেও একদিন কোনো না কোনো ক্রিকেটার ভাগ বসাবেন। কেননা ক্রিকেটে তো আজ সবকিছুই সম্ভব।