রাসেল ডমিঙ্গো বাংলাদেশে প্রথম এসেছিলেন ২০০৪ সালে। সাউথ আফ্রিকা অনূর্ধ্ব-১৯ দলের কোচ হয়ে। পরেও এসেছেন কয়েকবার। এবার টাইগারদের হেড কোচ হয়ে আসা এ প্রোটিয়া। সঙ্গত কারণেই সংবাদমাধ্যমের প্রবল আগ্রহ তাকে ঘিরে। যা রীতিমতো অবাক করেছে নতুন হেড কোচকে।

মঙ্গলবার বিকেলে বিমানবন্দরে নেমে দেখেছেন সাংবাদিকদের ভিড়। বুধবার সকালে শের-ই-বাংলা স্টেডিয়ামের সংবাদ সম্মেলন কক্ষে ঢুকে দেখেন তার সামনের কোনো আসনই ফাঁকা নেই। উপস্থিত দেশের প্রায় সকল মিডিয়া। জনাকীর্ণ সংবাদ সম্মেলনে ডমিঙ্গো জানালেন, ক্রিকেট নিয়ে এদেশের মানুষের আবেগ ও ভালোবাসার ব্যাপারটি আগ্রহ তৈরি করেছে বাংলাদেশের কোচ হতে।

‘২০০৪ সালে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে বাংলাদেশে এসেছিলাম, অবশ্য সেটি অনেক আগের কথা। সত্যি বলতে ক্রিকেট নিয়ে এদেশের মানুষের আগ্রহ এতটাই প্রবল যে আমাকে এটি ভীষণভাবে নাড়া দিয়েছে। সাউথ আফ্রিকার কোনো প্রেস কনফারেন্সে আপনি সর্বোচ্চ আট-নয়জন সাংবাদিক দেখবেন। আমি আমার জীবনে এত প্রতিবেদক দেখিনি! গতকাল বিমানবন্দরে প্রায় একশ সাংবাদিক ছিল। এই অঞ্চলের এই বিষয়টি আমাকে আকর্ষণ করে।’

দীর্ঘ কোচিং ক্যারিয়ারে তিনি এত সাংবাদিক এক সাথে আগে দেখেননি! তাতে বিস্ময় ছিল তার অবয়বেও। তবে সেই বিষ্ময়ে মুখের হাসি উরে যায়নি। সংবাদ মাধ্যমের করা প্রতিটি প্রশ্নের উত্তরই দিয়েছেন স্মিত হেসে। এমনকি জীবনে এই প্রথম এত সাংবাদিকের মুখোমুখি হয়েছেন সেই কথাটিও বলেছেন চওড়া হাসিতে।

প্রথম দিনের শুরুতে কন্ডিশনিং ক্যাম্পে ডাক পাওয়াদের সঙ্গে সময় কাটিয়েছেন ডমিঙ্গো। আর এর মধ্য দিয়ে শুরু হলো, বাংলাদেশ জাতীয় ক্রিকেট দলে ডমিঙ্গোর অধ্যায়। আগামী দুই বছরের জন্য বিসিবির সাথে চুক্তিবদ্ধ হন তিনি।

দেখে নিন ঈদ নাটকে কে কত টাকা আয় করলেন: