এখন থেকে প্রায় ৯ বছর আগের ঘটনা। হ্যাঁ ২০১০ সালের ২০ মার্চ বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড দ্বিতীয় টেস্ট চলছিল মিরপুর শেরে বাংলা স্টেডিয়ামে। অবশ্য মনে রাখার মত তেমন কিছু করতে পারেনি তখন বাংলাদেশ। নয় উইকেটে পরাজিত হওয়া ওই টেস্টে পাওয়ার ছিল তামিমের দুই ইনিংসে ফিফটি। প্রথম ইনিংসে করেন ৮৫ ও দ্বিতীয় ইনিংসে ৫২। এছাড়া সাকিব প্রথম ইনিংসে ৪৯ করে আউট হয় এবং দ্বিতীয় ইনিংসে লড়াকু ৯৬ রান করেন।

এবার মুল প্রসঙ্গে আসি ওই টেস্ট চলাকালীন সময়ে বাংলাদেশ সফরে ছিলেন তখনকার আইসিসি আইসিসি সভাপতি ডেভিড মরগ্যান। আর এই টেস্টের প্রথম নি লাঞ্চ বিরতিতে তিনি অনূর্ধ্ব ১৪ ক্রিকেটে দেশের সেরা খেলোয়াড়ের হাতে প্রুস্কার তুলে দেন।

২০১০ সালে বাংলাদেশের সেরা খেলোয়ার হন অসাধারন পারফর্ম্যান্স দেখান মেহেদী হাসান মিরাজ। তার হাতেই পুরুস্কার তুলে দেন আইসিসি সভাপতি ডেভিড মরগ্যান। বরিশালে জন্মেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ, বাবা অটোরিক্সা ড্রাইভার। আর্থিক টানাপোড়েনের মধ্যেই বেড়ে উঠেছেন বাংলাদেশের ক্রিকেটের নতুন তারকা মেহেদী হাসান মিরাজ। ৬ বছরের ব্যবধানে সেই তরুন জাতীয় দলে খেলছেন প্রথম টেস্ট ম্যাচ তাও আবার সেই ইংল্যান্ড দলের বিরুদ্ধে। আর অভিষেকেই নিজের জাত চিনিয়েছেন এই তরুন তূর্কী।

২০ অক্টোবর ২০১৬ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে টেস্টে অভিষেক হয় তার। আর অভিষেক ম্যাচেই নিয়ে নিয়েন পাঁচ উইকেট। শুধু কি তাই ইংল্যান্ডের অভিষেক খেলোয়াড় বেন ডাকেটের উইকেটও লাভ করেন এ ম্যাচে। আর সপ্তম কনিষ্ঠ বাংলাদেশী টেস্ট খেলোয়াড় হিসেবে তাঁর অভিষেক হয় তার। ইংল্যান্ডের বিপক্ষে ঐতিহাসিক টেস্ট সিরিজে হয়েছেন ‘ম্যাচ সেরা ও সিরিজ সেরা। আর দুই টেস্টে ১৯ উইকেট নিয়ে ভেঙ্গেছেন ১২৯ বছরের বিশ্বরেকর্ড।