তিনি সুপারম্যান শুধু বাংলাদেশের ক্রিকেটের নয়; বিশ্ব ক্রিকেটের সুপারম্যান। একইসঙ্গে স্পেশালিস্ট বোলার এবং স্পেশালিস্ট ব্যাটসম্যান হিসেবে দলকে সার্ভিস দিয়ে যাওয়া এমন কোনো অল-রাউন্ডার ক্রিকেট ইতিহাসে আসেনি। নয় ম্যাচে (৭৫, ৬৪, ১২১, ১২৪*, ৪১, ৫১, ৬৬ ও ৬৪) সবমিলে ৬০৬ রান সংগ্রহ করে বিশ্বকাপের চলতি আসরে সর্বোচ্চ রান সংগ্রহের তালিকায় শীর্ষে উঠে যান সাকিব। সে হিসাবে শচীন, হেইডেনের পাশে নিজের নাম লিখিয়েছেন।

একনজরে দেখে নেওয়ার যাক টুর্নামেন্ট সেরা হওয়ার জন্য কে কতটা যোগ্যতা রাখে:

সাকিব আল হাসান (বাংলাদেশ) চলতি বিশ্বকাপে ৮ ইনিংস ব্যাটিংয়ে নেমে ৮৬ দশমিক ৫৭ গড়ে ৬০৬ রান করেছেন। ২ সেঞ্চুরির সঙ্গে পেয়েছেন ৫ ফিফটিও। এই ৮ ইনিংসে সাকিবের সর্বনিম্ন রান কত জানেন? ৪১! ব্যাট হাতের অবিশ্বাস্য ধারাবাহিক সাকিব বল হাতেও কম যাননি। ৮ ইনিংসে শিকার করেছেন ১১ উইকেট। সাকিবের আরেক প্রতিদ্বন্দ্বী অস্ট্রেলিয়ার মিচেল স্টার্ক ১০ ম্যাচ খেলে ২৭ উইকেট পেলেও ৮ ইনিংসে ব্যাটিংয়ের সুযোগ পেয়ে করেছেন মাত্র ৬৮ রান।

রোহিত শর্মা (ভারত) সাকিবের পরেই সিরিজ সেরার রেসে আছেন রোহিত শর্মা। আট ম্যাচে সেঞ্চুরি ৫টা, বিশ্বকাপে যা এর আগে করতে পারেনি কেউ। সাথে এক হাফ সেঞ্চুরিতে ভারতীয় এই ওপেনারের রান ৬৪৮। আর ২৯ রান করলে টেন্ডুলকারকে ছাড়িয়ে এক আসরে সর্বোচ্চ রানের রেকর্ডটাও নিজের করে নিতে পারতেন।

ডেভিড ওয়ার্নার (অস্ট্রেলিয়া) ৬০০ রানের কোটায় আছেন আরেক ওপেনার ডেভিড ওয়ার্নার। এক বছরের নিষেধাজ্ঞা কাটিয়ে দারুণ ফর্মে অজি তারকা। ১০ ম্যাচে সমান তিনটি করে সেঞ্চুরি আর হাফ সেঞ্চুরিতে রান ৬৪৭। এবারের টুর্নামেন্টে এক ইনিংসে সর্বোচ্চ ১৬৬ রানের মালিকও ওয়ার্নার।

মিচেল স্টার্ক (অস্ট্রেলিয়া) মিচেল স্টার্ক গত বিশ্বকাপের ম্যান অব টুর্নামেন্ট। এবারো সেরার দৌড়ে আছেন ভালো মতোই। এবারের আসরে দু’বার আর সব মিলিয়ে তিনবার ফাইফারের রেকর্ড গড়েছেন মিচেল স্টার্ক। এরইমধ্যে পকেটে পুরেছেন ২৭ উইকেট। আর সতীর্থ গ্লেন ম্যাকগ্রাকে ছাড়িয়ে এক বিশ্বকাপে সর্বোচ্চ উইকেটের রেকর্ডটাও নিজের করে নিলেন অজি পেসার।

সাকিবের প্রতিদ্বন্দ্বী যারা, তাদের তুলনায় বাংলাদেশের বিশ্বসেরা এই অলরাউন্ডার এগিয়ে থাকবেন সবচেয়ে বেশি। এর একটাই কারণ, তিনি ব্যাটিং এবং বোলিং- দুই বিভাগেই অবদান রাখছেন। অন্যরা কেউ ব্যাটিংয়ে কিংবা কেউ বোলিংয়ে অবদান রাখছেন।